আশাপূর্ণা দেবীর ‘সুবর্ণলতা’ উপন্যাসের নামকরণের সার্থকতা আলোচনা করো।

সুবর্ণলতাকে শুধু একজন গৃহিণীর জীবন কাহিনী বললে ভুল হবে, সুবর্ণা একটি নির্দিষ্ট সময়ের প্রতিনিধিত্ব করে। এটা সেই সময়ের গল্প যখন ‘মেয়েদের’ লেখাপড়ার ইচ্ছাকে মহাপাপ মনে করা হত। নয় বছর বয়সে বিয়ে হওয়া সুবর্ণা সব বাধা অতিক্রম করে এগিয়ে যেতে পেরেছিলেন? তিনি কি নিজের আলোয় জ্বলতে পেরেছিলেন, নাকি প্রতিদিনের চাল-ডাল-তেল-মসলা ফর্দের মধ্যে হেনশেলের দরজার আড়ালে হারিয়ে … বিস্তারিত পড়ুন

‘মরীচিকা” কাব্যগ্রন্থের কয়েকটি কবিতার আলোচনা সাপেক্ষে যতীন্দ্রনাথ সেনগুপ্তের রবীন্দ্র বিরোধিতার স্বরূপ আলোচনা করো।   OR বাংলা আধুনিক কবিতায় যতীন্দ্রনাথ সেনগুপ্ত এক ভিন্নতর সুর সংযােজন করেছেন’- যতীন্দ্রনাথ সেনগুপ্তর কবিকৃতি আলােচনা প্রসঙ্গে এই মন্তব্যের সার্থকতা বিচার কর।

১৯১০ খ্রীষ্টাব্দ থেকে কাব্যরচনা শুরু করাও যতীন্দ্রনাথের কাব্যগ্রীর সংখ্যা অত্যল্প। তারপ্রদর্শন প্রথম কাব্যগ্রীর ‘মরিচিকা’ (১৯২২)। পরবর্তী কাব্যগ্রন্থগুলি হল ‘মরুশিখা’ (১৯২৭), ‘মরুমায়া’ (১৯৩০), ‘সায়ম’ (১৯৪১), ‘ত্রিযামা’ (১৯৪৮)। যতীন্দ্রনাথের মনে পর হয় নিশান্তিকা (১৯৫৭)। তারমানে বিবর্তন- চিহ্ন এই কাব্যগ্রন্থ। রবীন্দ্র-বিরােধী কবিরূপে যতীন্দ্রনাথের প্রকাশ ঘটলেও বস্তুত তিনি রবীন্দ্র-বিদ্বেষী ছিলেন না। রবীন্দ্র কাব্যপ্রতিভার প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকেই তিনি জীবনদর্শনের দিক … বিস্তারিত পড়ুন

ছোটগল্পের উদ্ভব ও ক্রমবিকাশ

ছোটগল্পের উদ্ভব ও ক্রমবিকাশের ইতিহাস শুরু ঊনবিংশ শতাব্দীর প্রথমার্ধেছোটগল্পের উদ্ভব ও ক্রমবিকাশের ইতিহাস (ইংরেজি: History of Short story) শুরু হয়েছে ঊনবিংশ শতাব্দীর তৃতীয়—চতুর্থ দশকে। গল্প বলা এবং শোনার প্রবণতা মানুষের মধ্যে প্রাচীনকাল থেকে বিদ্যমান থাকলেও একটি নির্দিষ্ট শিল্পরূপ হিসেবে ছোটগল্পের সৃষ্টি ঊনবিংশ শতাব্দীতে। অর্থাৎ ছোটগল্প সাহিত্যের কনিষ্ঠতম আঙ্গিক। কবিতা, নাটক, উপন্যাস, এমন কি প্রবন্ধেরও পরে … বিস্তারিত পড়ুন

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের যে কোনো একটি কবিতার কাব্যসৌন্দর্য বিচার করো।

সবুজ অভিযান কবিতার কাব্যিক সৌন্দর্য : বলাকার ১ সংখ্যক কবিতাটি রচিত একান্তই সবুজপত্রের জন্য, সবুজপত্রের প্রথম সংখ্যার জন্য। আর সবুজপত্র যে রকম বাংলা সাহিত্যে এক নূতনতর ভাব ও ভাষা নিয়ে এসেছিল, সবুজপত্রের প্রথম সংখ্যায় সবুজের অভিযান’ নামে প্রকাশিত কবিতাটিও যেন তেমনি। কবিতাটিতে কবি দুরন্ত নবীনদের ক্রমশ অশান্ত প্রচণ্ড প্রমত্ত প্রমুক্ত হয়ে অমর হওয়ার আহ্বান জানাচ্ছেন। … বিস্তারিত পড়ুন

.কোনো কবিতার কাব্যসৌন্দর্য বিচার করতে গেলে যে দিকগুলির প্রতি নজর দিতে হয় সেগুলির উল্লেখ করো।

কবিতার কাব্যসৌন্দর্য বিচার করতে গেলে যে দিকগুলির প্রতি নজর দিতে হয় সেগুলির কাব্য বা শিল্পসৌন্দর্যের মর্মমূলে প্রবেশাধিকার দিতে পারে । ফলে লেখক, পাঠক, সমালোচক, বিশ্লেষকদের নির্ভর করতে হতো বিদেশী বইপত্রের উপর। সাহিত্যমোদীদের এই বিদেশনির্ভরতার মুক্তি ঘটান বিখ্যাত শিক্ষক ও আবৃত্তিশিল্পী নরেন বিশ্বাস। তার “অলঙ্কার অন্বেষা” বইটি বাংলাদেশী পণ্ডিত লিখিত অলঙ্কারশাস্ত্র বিষয়ক প্রথম বই। তার সামনে কোন … বিস্তারিত পড়ুন

তোমার মহাবিদ্যালয়ে বিদায় সম্বর্ধনা জানানোর উদ্দেশ্য আয়োজিত সভার জন্য একটি তাৎক্ষণিক বক্তব্য রচনা করো।

বিদায় অনুষ্ঠানের বক্তব্য : আপনিও নিশ্চয়ই কোনো না কোনো সময়ে কারো বিদায় অনুষ্ঠান দেখেছেন অথবা হয়ত আপনি নিজেও এতে অংশগ্রহণ করেছেন। বিশেষ করে যখন আপনি প্রথমবার আপনার স্কুল ছেড়েছেন এবং আরও পড়াশোনার জন্য অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়েছেন।

তাই সেই সময় আয়োজিত বিদায় অনুষ্ঠানের কথা নিশ্চয়ই মনে রাখবেন। একইভাবে, আপনি আরও অনেকবার বিদায় অনুষ্ঠান দেখার এবং অংশগ্রহণ করার সুযোগ পেয়েছেন এবং ভবিষ্যতেও পেতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ, কলেজের বিদায়, আমাদের সাথে কাজ করা কোনও কুলির বিদায় বা এই জাতীয় আরও অনেক অনুষ্ঠানে আমাদের বিদায়ের বক্তব্য দরকার।

Farewell এর অর্থ কী?

আপনারা সবাই এতক্ষণে নিশ্চয়ই বুঝে গেছেন যে বিদায় মানে যখন কাউকে বিদায় জানাতে হয়। এই ধরনের বিদায়ের ইংরেজি শব্দ হল Farewell । এই শব্দটি দুটি শব্দের সমন্বয়ে গঠিত। ভাড়া এবং ওয়েল, যার অর্থ – ভাড়া মানে ভ্রমণ এবং ভাল মানে ভাল। এই শব্দটি ব্যবহার করার অর্থ হল যে আপনি আপনার সামনে থাকা ব্যক্তিটিকে ভবিষ্যতের জন্য আরও ভাল জীবন কামনা করছেন। আর সেই ব্যক্তির আগামী জীবনের যাত্রা শুভ ও সমৃদ্ধ হোক এই প্রত্যাশা করছি। আমরা প্রায়শই বন্ধুর বিদায়ের সময় একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করি এবং এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাদের শুভেচ্ছা জানাই।

বিদায়ী বক্তব্য কি এবং কখন বিদায়ী ভাষণদেওয়া হয়?

যখনই আমাদের কোনো সঙ্গী আমাদের থেকে দূরে চলে যায় তখনই বিদায় হয়। এরই মধ্যে আমরা তার ভবিষ্যৎ জীবনের জন্য নানান শুভকামনা জানাই। এবং বিদায়ী বক্তব্যর মাধ্যমে এই সমস্ত অনুভূতি তাদের কাছে পৌঁছে দিন। তাই আমরা বুঝতে পারি যে আমরা বিদায়ী ভাষণ দিই শুধুমাত্র কারো বিদায় উপলক্ষে।

বিদায়ী বক্তব্যর মাধ্যমে, যে ব্যক্তি আমাদের ছেড়ে চলে যাচ্ছে তার সম্পর্কে আমরা আমাদের অনুভূতি এবং চিন্তাভাবনা প্রকাশ করি। যেমন আমাদের যে কোন সহপাঠী, আমাদের সাথে কাজ করা কোন কুলি, যে কোন সঙ্গী, বন্ধু বা সিনিয়র, শিক্ষক ইত্যাদি যে কেউ হতে পারে। বিদায় অনুষ্ঠানের সময়, ভাষণটি সেই ব্যক্তির সাথে জড়িত বিভিন্ন স্মৃতি এবং তার প্রতি তাদের অনুভূতি প্রকাশ করে। তার সঙ্গে কাটানো সময়ের কথা স্মরণ করে তার ভবিষ্যতের জন্যও শুভেচ্ছা জানানো হয়।

বিদায়ী অনুষ্ঠানে প্রদত্ত বক্তব্যর প্রকারভেদ :

নিবন্ধে আপনি শিখেছেন যে কারো বিদায়ের সময় বিদায়ী ভাষণ দেওয়া হয়। এমন পরিস্থিতিতে অনেক সময় আমরা বিদায়ী পার্টি বা বিদায় অনুষ্ঠানের আয়োজন করি। তারা আমাদের বন্ধু, সহপাঠী, সিনিয়র, শিক্ষক, সহকর্মী, বস বা আমাদের জীবনের অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের জন্য সংগঠিত। এর ভিত্তিতে আমরা বিদায়ী বক্তব্যর ধরন নিয়ে আলোচনা করতে পারি। চলুন এবার জেনে নিই বিদায় অনুষ্ঠানের ভাষণের ধরন-

  • শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য দিতে হবে। বিশেষ করে দ্বাদশ শ্রেণিতে ফেয়ারওয়েল পার্টির সময়।
  • বিদ্যালয়ের শেষ দিনে অধ্যক্ষের বক্তব্য
  • জুনিয়রদের দেওয়া বক্তব্য তাদের সিনিয়রদের কাছে। (বয়স্কদের জন্য বিদায়ী ভাষণ)
  • বন্ধুদের জন্য বিদায়ী বক্তব্য যখন বন্ধুরা অন্য জায়গায় যাচ্ছে পড়াশোনা, চাকরি বা অন্য কোনো কারণে।
  • শিক্ষকদের জন্য বিদায়ী বক্তব্য শিক্ষকদের অবসর নেওয়ার সময়, স্কুল ছেড়ে অন্য কোনও প্রতিষ্ঠানে যাওয়া বা অন্য কোনও অনুরূপ কারণে।
  • বসের জন্য বিদায়ী বক্তব্য এটিও মূলত অবসর গ্রহণ বা অন্য কোনও সংস্থায় যোগদানের ক্ষেত্রে।
  • সহকর্মীর জন্য বিদায়ী বক্তব্য সহকর্মীর অবসর গ্রহণ বা অন্য কোনও সংস্থায় যোগদানের সময়।

দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের জন্য বিদায়ী বক্তব্য :

আসুন, এখন আমরা সংক্ষেপে বিদায় অনুষ্ঠানের ভাষণের উদাহরণগুলো বলি। আপনি এইগুলি পড়ে বিদায় অনুষ্ঠানের জন্য আপনার নিজের ভাষণ প্রস্তুত করতে পারেন –

বিদ্যালয়ের শেষ দিনে অধ্যক্ষের বক্তব্য

এখানে উপস্থিত বিদ্যালয়ের সকল সম্মানিত শিক্ষক এবং আমার প্রিয় শিক্ষার্থীবৃন্দ, আপনাদের সবাইকে এখানে স্বাগতম। আজ আমরা সবাই এখানে জড়ো হয়েছি দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের বিদায় জানানোর উদ্দেশ্যে। শুধু তাই নয়, এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে আমরা তাদের ভবিষ্যৎ ও তাদের উন্নত জীবনের জন্য শুভকামনা জানাব।

আমরা সবাই জানি যে ছাত্র এবং শিক্ষক একে অপরের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং তাদের একে অপরের সাথে একটি গুরুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে। বলা যায় ছাত্র ও শিক্ষক একে অপরের পরিপূরক। শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের শিক্ষিত করতে পারেন তবে তারা তাদের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অনেক কিছু শেখার সুযোগও পান। যেখানে একদিকে বই শিক্ষার পাশাপাশি শৃঙ্খলা ও সংস্কৃতির শিক্ষা দিয়ে তাদের সময়ানুবর্তিতা ও দায়িত্বশীল ব্যক্তি করে তোলে, অন্যদিকে শিক্ষার্থীরা তাদের শিক্ষা, সংস্কৃতি ও উপলব্ধির পরিচয় দিয়ে সাফল্য অর্জন করে এবং তাদের শিক্ষকদের সম্মান অর্জন করে। মান বৃদ্ধি

এই ছাত্রদের এরকম অনেক গল্প আছে যেগুলো এখনো আমাদের স্কুলের জন্য সম্মানের বিষয়। (বিস্তারিত বর্ণনা করতে পারেন।) আজও সমাজ আমাদের স্কুলের ছাত্রদের কৃতিত্ব দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়। এর সাথে আগামী প্রজন্মও তাদের সিনিয়রদের দেখে শিক্ষা নিচ্ছে। বলা হয়ে থাকে যে কোনো ব্যক্তির ব্যক্তিত্ব তার মৌলিক শিক্ষার দ্বারা গঠিত হয়। আর আমাদের সকল শিক্ষার্থীর চরিত্র ও ব্যক্তিত্ব অত্যন্ত প্রশংসনীয়। এ দিকে লক্ষ্য রেখে আমি আশা করি ভবিষ্যতেও এই শিক্ষার্থীরা তাদের সকল কাজ একই নিষ্ঠা ও পরিশ্রমের সাথে চালিয়ে যাবে। এবং ভবিষ্যতে আমরা নতুন উচ্চতা ছুঁয়ে এই বিদ্যালয়ের নাম সুনাম অর্জন করব।

আমরা আপনার সামনে আপনার উজ্জ্বল ভবিষ্যতের জন্য শুভ কামনা করি। আমরা ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করি যে আপনি সকলে সুস্থ, সমৃদ্ধ এবং সুখী থাকুন এবং এর সাথে আমি আমার কথা শেষ করতে চাই।

শিক্ষকদের বিদায় অনুষ্ঠানে বিদায়ী ভাষণ :

শ্রদ্ধেয় অধ্যক্ষ মহোদয়, এখানে উপস্থিত সকল শিক্ষক ও আমার সহকর্মীবৃন্দ! আমি (আপনার নাম বলুন), আজকের এই অনুষ্ঠানে আপনাদের সবাইকে স্বাগত জানাই। আজ আমরা সবাই আমাদের শ্রদ্ধেয় শিক্ষকের বিদায় অনুষ্ঠান উপলক্ষে (তাঁর নাম উল্লেখ করুন) এখানে সমবেত হয়েছি। এই উপলক্ষে, অধ্যক্ষের দ্বারা আমাকে কথা বলার/দেখার সুযোগ দেওয়া হয়েছে, যার জন্য আমি আপনাদের সকলের কাছে কৃতজ্ঞ। এবং আমার সকল সহকর্মী এবং অন্যান্য ছাত্রদের পক্ষ থেকে, আমি আমাদের প্রিয় শিক্ষক শ্রী (নাম) জির বিদায় উপলক্ষে আমার চিন্তাভাবনা জানাতে চাই।

শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষকের গুরুত্ব আমরা সবাই জানি। একজন শিক্ষক শিক্ষার্থীদের জীবনে শুধু শিক্ষার আলোই আনেন না বরং তাদের জীবন যাপনের বাস্তব জ্ঞানও প্রদান করেন। তারা বলে যে একজন শিক্ষকের হাতেই ভবিষ্যৎ। কারণ তারা আগামী প্রজন্মকে শিক্ষিত করে এবং তাদের ব্যক্তিত্বও গড়ে তোলে। পিতা-মাতার পরে যদি কেউ ঈশ্বরের মর্যাদা পেয়ে থাকেন তবে তিনি আমাদের শিক্ষক। বরং শিক্ষকের মহিমা বুঝতে পারবেন এই দোহাই থেকে।

একইভাবে, আমাদের শিক্ষক (নাম) আমাদের জীবনে গুরুর ভূমিকায় রয়েছেন। আমাদের শিক্ষা দেওয়ার পাশাপাশি তিনি আমাদেরকে আত্মনির্ভরশীলতা, সময়ানুবর্তিতা, কঠোর পরিশ্রম, নিষ্ঠা ও উচ্চ চরিত্রের শিক্ষা দিয়েছেন। এর পাশাপাশি তিনি আমাদের সঠিক পথও দেখিয়েছেন যখন আমরা ভুল করেছি, কখনো কঠোর হয়ে কখনো ভালোবাসা দিয়ে বুঝিয়েছি। আমাদের ত্রুটি-বিচ্যুতি দূর করে শৃঙ্খলার শিক্ষা দিয়ে তিনি আমাদের আগের চেয়ে ভালো করেছেন। যার জন্য আমরা তাঁর কাছে চির ঋণী থাকব।

আমরা সকল ছাত্ররা আপনাকে বছরের পর বছর ধরে পড়াতে দেখেছি এবং সবসময় আপনার কাছ থেকে কিছু না কিছু শিখেছি। আপনার পড়াশোনার পদ্ধতি, আমাদের প্রতি আপনার প্রেমময় মনোভাব এবং আমাদের শিক্ষা এবং অন্যান্য সম্পর্কিত সমস্যাগুলি এক চিমটে সমাধান করার আপনার ক্ষমতা আপনাকে আমাদের প্রিয় শিক্ষক করে তোলে। আমরা নিজেদেরকে সৌভাগ্যবান মনে করি যে, কাজের প্রতি আত্মবিশ্বাস, সংযম, নিষ্ঠা ও সততার মতো গুণাবলি ধারণ করার যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি এবং তাতে সফল হয়েছি। আমরা আপনার সামনের জীবনে সুস্বাস্থ্য, সমৃদ্ধি এবং সুখের জন্য ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করি।

আজ, আপনার বিদায় অনুষ্ঠান উপলক্ষে, আমরা আপনার পৃষ্ঠপোষকতায় অধ্যয়ন করার জন্য সমস্ত শিক্ষার্থীকে ধন্যবাদ জানাতে চাই। আমরা যদি জ্ঞাতসারে বা অজান্তে কোনো ভুল করে থাকি, তাহলে তার জন্য আমরা আপনার কাছে ক্ষমাপ্রার্থী। এই কথাগুলো বলে আমি আমার বক্তব্য শেষ করছি। এবং আমার মতামত শোনার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ।

 

বিস্তারিত পড়ুন

স্বাধীনতা দিবস পালনের উদ্দেশ্যে আয়োজিত সভার জন্য একটি তাৎক্ষণিক বক্তব্য প্রস্তুত করো।

ভারতের ইতিহাসে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দিন হচ্ছে ১৫ অগস্ট, যেদিন ভারত দীর্ঘ ২০০ বছরের পরাধীনতার অন্ধকারের জাল ছিঁড়ে স্বাধীনতা অর্জন করেছিল। এই দিনটিকে শুধুমাত্র ভারতের স্বাধীনতা পাওয়ার দিন হিসেবে উদযাপন করা হয় না। একই সঙ্গে স্মরণ করা হয় ভারতের বীর সন্তানদের, যাঁরা দেশের জন্য নিজেদের প্রাণ উৎসর্গ করেছেন। এই দিনটিতে স্কুল, কলেজ, পাড়ায়, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নানা … বিস্তারিত পড়ুন

তোমার কোনো ভ্রমণের অভিজ্ঞতার উপর ভিত্তি করে একটি ছোটোগল্প রচনা করো।

একটি ভ্রমণের অভিজ্ঞতা রচনা ভূমিকা – ভ্রমণ করতে কার না ভালো লাগে।অনেক দূর ভ্রমণে যেতে আমাদের অনেকের মনের প্রবল ইচ্ছা। কিন্তু নানা অসুবিধার কারণে আমরা অনেক সময় দূরের ভ্রমণে যেতে পারি না। দূরের ভ্রমণে না যাওয়ার সবচেয়ে বড় কারণ হিসেবে তারা টাকা-পয়সার অভাব। আমরা সকলেই পিসির বাড়ি মাসির বাড়ি মামার বাড়ি অথবা যেকোন আত্মীয়স্বজনের বাড়ি … বিস্তারিত পড়ুন

ভারতে বিশ্বায়নের ধারণা ও তার প্রভাব সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা কর।

আন্তর্জাতিক রাজনীতির অন্যতম একটি প্রধান ধারণা হল বিশ্বায়ন বা Globalization. ঊনবিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধে ব্রিটিশ শাসকরা একদিকে যেমন অর্থলগ্নি করে অন্যদিকে তারা নানাভাবে ভারতের সম্পদ লুঠ করে ভারতকে নিঃস্ব-রিক্ত করে তোলে। একপেশে মুক্ত বাণিজ্য নীতি প্রয়োগ করে ভারতীয় অর্থনীতিকে পঙ্গু করে দেয়। বর্তমান কালে সেই প্রবহমান ধারার যে প্রভাব লক্ষ করা যায় তার পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্বায়ন নিন্মে … বিস্তারিত পড়ুন

ভারতীয় রাজনীতিতে সাম্প্রদায়িকতাবাদের কারণ ও প্রভাব বিশ্লেষণ কর।

সাম্প্রদায়িকতার কারণ : ভূমিকা : ভারতে সাম্প্রদায়িকতার উৎস ও বিকাশ নিয়ে ঐতিহাসিকদের মধ্যে তীব্র মতভেদ রয়েছে । কারও মতে ব্রিটিশের ‘ বিভাজন ও শাসন নীতি ’ , কেউ মনে করেন ব্রিটিশের ঔপনিবেশিক অর্থনীতির কুফল হল ভারতে সাম্প্রদায়িকতা বিকাশের কারণ । আবার কেউ বা হিন্দু – মুসলমানের আলাদা স্বার্থচিন্তাই সাম্প্রদায়িকতার উদ্ভবের কারণরূপে চিহ্নিত করেছেন । আসলে সাম্প্রদায়িকতা … বিস্তারিত পড়ুন

Contact us dm developments north west. 8000 via sardinia way, estero, fl 33928 mls# 224012061 coconut point listings the residences at coconut point.