নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীর ‘হঠাৎ শূন্যের দিকে’ কবিতার ভাববস্তু বিশ্লেষণ করো।  অথবা  ‘হঠাৎ শূন্যের দিকে’ কবিতাটির নামকরণের সার্থকতা বিচার করো।  অথবা  ‘হঠাৎ শূন্যের দিকে’ কবিতায় কবি নাগরিক জীবন থেকে মুক্তি প্রার্থনা করেছেন- আলোচনা করো।  

নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীর ‘হঠাৎ শূন্যের দিকে’ কবিতাটি ‘নীরক্ত করবী’ (১৯৬৫) কাব্যগ্রন্থের অন্তর্গত। কবিতাটিতে নাগরিক জীবনের অসহায়তা ও চরম বিপন্নতার ছবি প্রকাশিত হয়েছে। কবিতাটিতে জাদু বাস্তবতা বা ম্যাজিক রিয়ালিজমের প্রভাব রয়েছে। কবিতাটি প্রতীকধর্মী। কবিতায় দুটি স্তবক রয়েছে। দুটি স্তবকের শুরুতেই রয়েছে ‘ক্রমে স্পষ্ট হয় সব’। কবি বলেছেন, শহর কলকাতার রাজপথে প্রচণ্ড ভিড়ের মধ্যে কে সিংহ, কুকুর, হাতি … বিস্তারিত পড়ুন

Invision pharma ltd. Project dm developments north west. Yangzhou university scholarships 2024.