সুস্বাস্থ্যের জন্য যোগব্যায়াম এবং সুস্থ জীবনধারার যোগিক ধারণার ব্যাখ্যা দিন। যোগব্যায়াম কীভাবে চাপ কমায়? Give an explanation of Yoga for good health and Yogic concept of healthy life style. How Yoga reduces stress?

যোগ ব্যায়াম বা ইয়োগা: যোগব্যায়াম কি? যোগ ব্যায়ামের উপকারিতা পোষ্টে আপনাদের স্বাগত্বম। যোগব্যায়াম কেবল একটি আসন নয়, এমন একটি ভারতীয় সংস্কৃতি যা আপনাকে শারীরিক ও মানসিকভাবে সুস্থ রাখে। এটি ভারতীয় জ্ঞানের পাঁচ হাজার বছরের পুরানো স্টাইল। এটি আমাদের অনেক রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করার শক্তি দেয়।
যোগব্যায়াম নিয়ে আজকের পোষ্টে বিস্তারিত আলোচনা করবো। এই লেখায় যোগ ব্যায়াম কি (yoga ki), যোগ ব্যায়ামের উপাকারিতা এবং ইয়োগা বা যোগ ব্যায়াম করার নিয়ম নিয়ে কথা বলবো।

আমরা ফিটনেসের জন্য জিমে যাই, সেখানে প্রচুর মেশিন ব্যবহার করে শরীরকে ফিট রাখার চেষ্টা করি। এগুলি ছাড়াও তারা জিমে প্রচুর অর্থ ব্যয় করি। কিন্তু আমারা যোগা ব্যায়াম বা ইয়োগা সম্পর্কে কিছুই জানি না।একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে 70 শতাংশ যুবক যোগার পরিবর্তে জিমে যোগ দেন, কারণ তারা মনে করেন যে, যোগ ব্যায়াম একটি ধীর প্রক্রিয়া। সম্ভবত এই লোকেরা যোগের সুবিধা সম্পর্কে অবগত নয়।

যোগ ব্যায়াম বা ইয়োগা
যোগ ব্যায়াম বা ইয়োগা ব্যায়ামের নিয়মিত অভ্যাস আপনার মনকে সুস্থ্য রাখতে এর কোন বিকল্প নাই ব্যায়াম কথাটির অর্থ হলো নিয়মিত অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ চালনা করা। মনঃ সংযোগ করার মাধ্যমে একটি নিদিষ্টি নিয়মে স্থির ভাবে অবস্থান করাকে বা ইয়োগা বা যোগ ব্যায়াম বলে। নিচে যোগব্যায়াম কি, যোগ ব্যায়াম করার উপকারিতা এবং যোগ ব্যায়াম করার নিয়ম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো:

যোগ ব্যায়াম কি?
যোগব্যায়াম কে বিভিন্ন নামে অক্ষায়িত করা হয়। একে, প্রাণায়ন, যোগা, ইয়োগা বলেও ডাকা হয়। যোগ ব্যায়ামের একটি শাখা হলো যোগাসন। যেখানে আসন বা বসার মাধ্যমে যোগ ব্যায়াম করা হয়। একটি আধ্যাত্মিক প্রক্রিয়া যেখানে দেহ, মন এবং আত্মাকে একত্রিত করা হয় (যোগা)) এই শব্দটি হিন্দু, জৈন ও বৌদ্ধ ধর্মে ধ্যান প্রক্রিয়া সম্পর্কিত।

যোগ সংস্কৃত শব্দ, যা যুজ থেকে এসেছে, যার অর্থ যোগাড় করা, আবদ্ধ হওয়া। যোগব্যায়াম এখন চীন, জাপান, তিব্বত, দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া এবং শ্রীলঙ্কার পাশাপাশি ভারত থেকে বৌদ্ধ ধর্মে ছড়িয়ে পড়েছে এবং লোকেরা এই সময়ে সমস্ত সভ্য বিশ্বে এর সাথে পরিচিত।

এটি এখন এত খ্যাতি অর্জন করেছে যে ২০১৪ সালের ১১ ই ডিসেম্বর, জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ প্রতি বছর ২১ জুনকে বিশ্ব যোগ দিবস হিসাবে স্বীকৃতি দিয়েছে।

যোগব্যায়াম ধর্ম এবং বিশ্বাসের বাইরে একটি বিজ্ঞান। যা সকল ব্যক্তির উচিত তাদের জীবনে অন্তর্ভুক্ত করা। এটি আমাদের জীবনের সাথে সম্পর্কিত সমস্ত শারীরিক, সামাজিক, আধ্যাত্মিক, মানসিক দিকগুলিতে কাজ করে।

এর অর্থ হল আপনাকে দেহ এবং মনের মধ্যে একটি সমন্বয় তৈরি করা। আপনি যদি নিয়মিত যোগব্যায়াম করেন তাহলে এর অনেক উপাকৃত হবেন।

যোগ ব্যায়ামের উপকারিতা:
যোগব্যায়াম করার অনেকগুলি উপকারিতা রয়েছে। যেখানে কেবল জিম করলে আমাদের দেহ সুস্থ থাকে, সেই যোগব্যায়াম আমাদের দেহের সাথে সাথে মনকে বেশি সুস্থ্য করে তোলে। প্রাণায়ন বা যোগব্যায়ামের কিছু উপকারিতা:

১। মনের শান্তি
যোগব্যায়াম কেবল আমাদের দেহের পেশীগুলিকেই ভাল ব্যায়াম দেয় না, আমাদের মনকে শান্ত রাখতে সহায়তা করে। চিকিৎসা গবেষণাগুলি প্রমাণ করেছেন যে, যোগব্যায়াম শারীরিক এবং মানসিকভাবে উভয়ই ভালো রাখতে সহায়তা করে।

যোগব্যায়াম টেনশন বা স্ট্রেস থেকে মুক্তি দেয় এবং ভাল ঘুমের দিকে নিয়ে যায়, ক্ষুধা এবং হজম শক্তি বৃদ্ধি করে। এটি মনকে সর্বদা শান্ত রাখে।

২। স্ট্রেস মুক্ত জীবন
আপনি যদি নিজের রুটিনে যোগ যোগ করেন তবে আপনার স্ট্রেস-মুক্ত জীবন থাকতে পারে। অধ্যয়নগুলি বলছে যে প্রতিটি অন্যান্য ব্যক্তি আজ মানসিক চাপের মধ্যে রয়েছে।

স্ট্রেসের কারণে আমরা অনেক রোগের শিকার হয়ে পড়েছি। এজন্য যোগব্যায়াম আপনাকে চাপমুক্ত করে তোলে। আপনি মনের শান্তি পান, ভাল ঘুম পান, হজম ঠিক আছে।

৩। শরীরের ক্লান্তি
আমরা যখন যোগব্যায়াম করি, তখন পেশীগুলি প্রসারিত, মোচড় দেওয়া, মোচড়ানো এবং প্রসারিত করার মতো অনেকগুলি ক্রিয়া হয়। এটি আমাদের দেহের ক্লান্তি দূর করে এবং আমরা সর্বদা সতেজ বোধ করি। আপনি যদি নিয়মিত যোগব্যায়াম করেন তবে আপনার দেহে শক্তি থাকবে।

৪। রোগমুক্ত শরীর
যোগ ব্যায়াম শরীরকে সুস্থ করে তোলে, কারণ এটি আমাদেরকে রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করার শক্তি দেয়। হৃদরোগ, ডায়াবেটিস কমিয়ে রাখে এবং হাঁপানির মতো অনেক রোগের ক্ষেত্রেও ইয়োগা বা যোগাসনের পরামর্শ দেওয়া হয়।
যোগব্যায়াম রক্তে চিনির স্তর নিয়ন্ত্রণের দিকে নিয়ে যায় এবং শ্বাসকষ্টজনিত ব্যাধিগুলিও মূল থেকে নির্মূল হয়। এজন্য আপনি যদি প্রতিদিন যোগব্যায়াম করেন তবে আপনি সুস্থ থাকবেন।

৫। ওজন নিয়ন্ত্রণ
বিশ্বের ৭০ শতাংশ মানুষের স্থূলতা রয়েছে। তবে আমরা আমাদের জীবনযাত্রায় যোগকে অন্তর্ভুক্ত করে স্থূলত্ব নিয়ন্ত্রণ করতে পারি। যোগব্যায়াম করলে শরীর নমনীয় হয়।

এটি আমাদের পেশী শক্তিশালী করে এবং শরীর থেকে অতিরিক্ত মেদ বা চর্বি হ্রাস করে। এছাড়াও আমাদের পাচনতন্ত্রকে শক্তিশালী করে তোলে। ফিটনেসের জন্য যোগা একটি খুব ভাল উপায়।
৬। সর্বদা তরুণ থাকবেন
যোগ ব্যায়াম আপনাকে কেবল মুখে আভাস এনে দেয় না, পাশাপাশি যোগাব্যায়াম গুলির সাহায্যে দেহের অভ্যন্তরীণ গ্রন্থিগুলি তাদের কাজ করার কারণে আপনাকে তরুণ থাকতে সহায়তা করে।

৭। শরীর শক্তিশালী থাকবে
আমাদের ব্যস্ত জীবনে প্রতিদিন আমরা অনেক সমস্যার মুখোমুখি হই। কাজের চাপের কারণে আমরা শরীর এবং মন উভয় থেকেই ক্লান্ত হয়ে পড়ি। শরীরের শক্তি যেমন ক্ষয় হয় তেমনি ক্ষয় মহ মনের শক্তির। শরীর এবং মনকে শক্তিশালী রাখতের যোগ ব্যায়ামের বিকল্প নেই।

তবে আপনি যদি আপনার জীবনযাত্রায় যোগব্যায়াম অবলম্বন করেন তবে আপনি নিজেকে শক্তিশালী বোধ করবেন। এমন অনেক লোক আছেন যারা যোগব্যায়াম করেন এবং বৃদ্ধ বয়সেও যুবক হিসাবে উপস্থিত হন।

৮। মন এবং শরীরের সাথে সর্ম্পক তৈরি করে
আমাদের নিজস্ব আত্মীয়দের সাথে সম্পর্কের যোগের মাধ্যমে উন্নতি হয়। একটি মন যা শিথিল, সুখী এবং সন্তুষ্ট, একটি ভাল সম্পর্ক তৈরী করতে যোগব্যায়াম ও ধ্যান মনে সুখ ও শান্তি বয়ে আনে। এটি আমাদের আত্মার সাথে সুন্দর সংযোগ স্থাপনের ক্ষমতা দেয়।

৯। ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ
যোগব্যায়ামের সাথে আপনি আপনার রক্তে চিনির মাত্রাও নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন এবং রক্তে চিনির বর্ধিত স্তরকে হ্রাস করতে পারেন। যোগব্যায়াম ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য খুব উপকারী। এটি এলডিএল বা খারাপ কোলেস্টেরলও হ্রাস করে।

১০। অতিরিক্ত চিন্তা থেকে মুক্তি
যোগব্যায়াম বা যোগাসন আপনার মাথা থেকে অতিরিক্ত চিন্তা বা টেনশন দুরে রাখবে। ফলে আপনার মন ও শরীর ভালো থাকবে। প্রাণায়ন বা যোগব্যায়াম আপনার মনের শক্তিকে বাড়িয়ে তুলবে।

যোগা, মানসিক শান্তি প্রদানের মাধ্যমে দক্ষতা বাড়ায়। যোগ এবং প্রাণায়াম বর্তমান সময়ে মন থেকে লাথি দেয়, যার কারণে আমরা খুশি এবং লক্ষ্যটির দিকে মনোনিবেশ করি।
যোগ ব্যায়াম করার নিয়ম:
সকালের সময় সূর্যোদয়ের এক থেকে দুই ঘন্টা আগে যোগের জন্য সেরা সময়। যদি সকালে এটি আপনার পক্ষে সম্ভব না হয় তবে আপনি এটি সূর্যাস্তের সময় করতে পারেন। তবে সকালে এই সময়ে যোগব্যায়াম করা ভাল।

যোগব্যায়াম করার সময় নিম্নলিখিত বিষয়গুলি মনে রাখবেন:
• যোগ ব্যায়ামের জন্য দিনের যে কোনও সময় নির্ধারণ করুন, প্রতিদিন একই সময় এই ব্যায়াম করলে সবথেকে ভালো ফল পাওয়া যাবে।
• ইয়োগা মাদুর বা কার্পেট বিছিয়ে যোগা সহজ করুন।
• আপনি পার্কের মতো কোনও খোলা জায়গায় বা ঘরে বসে যোগব্যায়াম করতে পারেন।
• কেবল মনে রাখবেন জায়গাটি এমন হওয়া উচিত যে আপনি বিশুদ্ধ বাতাস শ্বাস নিতে পারেন।
এগুলি ছাড়াও যোগব্যায়াম করার জন্য আপনার যোগ ব্যায়ামের নিয়ম সম্পর্কে ভাল জ্ঞান থাকা উচিত, যাতে ভুলভাবে যোগব্যায়াম করে আপনি নিজের ক্ষতি না করেন।

যোগব্যায়াম করার সঠিক নিয়ম বা পদ্ধতি:
আপনি যখন নিজের রুটিনে অনুসারে ইয়োগা ব্যায়াম করবেন। তখন আপনাকে কিছু নিয়মের যত্ন নিতে হবে। আপনি যদি এই নিচের কয়েকটি সাধারণ নিয়ম অনুসরণ করেন তবে অবশ্যই যোগা ভালো ফল পাবেন।
•নিজেই ভুল যোগব্যায়াম অনুশীলনের পরিবর্তে একজন পরিচালকের সাহায্য নিন।
•যোগাব্যায়াম সবসময় সূর্যোদয় বা সূর্যাস্তের সময় করা উচিত।
•সর্বদা আরামদায়ক পোশাক পরে যোগ করুন।
•যোগব্যায়াম করার আগে গোসল করুন।
•যোগাব্যায়াম সময় মাথা থেকে সব চিন্তা কিছুক্ষনের জন্য দুরে রাখুন।
•খালি পেটে যোগব্যায়াম করুন।
•ধৈর্য এবং অধ্যবসায়ের সাথে যোগব্যায়াম অনুশীলন করুন।
•যোগব্যায়াম করার 1 ঘন্টা পরে গোসল করুন।
•সবসময় পরিষ্কার জায়গায় যোগা করুন।
নিজেকে মোটেও নিজের দেহ দিয়ে জোর করবেন না।
যোগাব্যায়াম বিভিন্ন প্রকারভেদ বা ধরন রয়েছে। নিচে বিভিন্ন যোগ ব্যায়ামের বা ইয়োগা ব্যায়ামের সংকিপ্ত বর্ননা দেওয়া হলো-

যোগ ব্যায়ামের প্রকারভেদ ও নিয়ম:
যোগ অনেক খাঁটি ফর্মের, তবে প্রধানত যোগাসনের ৪ টি প্রধান ধরণ বা পথ রয়েছে, যা নিম্নরূপ।

১। রাজ যোগা
রাজ মানে রাজকীয় এবং ধ্যান যোগের এই শাখার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ। এই যোগের আটটি অংশ রয়েছে, এ কারণেই পাত্রঞ্জলি এর নাম দিয়েছিলেন অষ্টাঙ্গ যোগা।
পাত্রঞ্জলি যোগসূত্রে এটি উল্লেখ করেছেন। এই 8 টি অঙ্গ নিম্নরূপ: যম (শপথ), নিয়ম (আচরণের নিয়ম বা স্ব-শৃঙ্খলা), আসন(আসন করার মাধ্যমে), প্রাণায়াম (শ্বাস নিয়ন্ত্রণ), প্রত্যয়হর (ইন্দ্রিয়ের নিয়ন্ত্রণ), ধরনা (ঘনত্ব), ধ্যান (ধ্যান), এবং সমাধি (পরম বা চূড়ান্ত মুক্তি) ।

২। কর্ম যোগা
পরবর্তী শাখা হ’ল কর্ম যোগা বা সেবার পথ। আমরা কেউই এই পথ থেকে এড়িয়ে যেতে পারি না। কর্ম যোগের মূলনীতি হ’ল আমরা আজকে যা অনুভব করি তা আমাদের অতীতের ক্রিয়া দ্বারা তৈরি হয়েছিল।

এটি সম্পর্কে সচেতন হয়ে আমরা বর্তমানকে একটি ভাল ভবিষ্যতের পথ তৈরি করতে পারি, যা আমাদের নেতিবাচকতা এবং স্বার্থপরতার দ্বারা আবদ্ধ হতে মুক্তি দেয়। যখনই আমরা আমাদের কাজ করি এবং নিঃস্বার্থভাবে আমাদের জীবনযাপন করি এবং অন্যের সেবা করি, আমরা এভাবেই কর্ম যোগ করি।

৩। ভক্তি যোগা
ভক্তি যোগ ভক্তির পথ বর্ণনা করে। ভক্তি যোগব্যায়াম আবেগকে নিয়ন্ত্রণ করার একটি ইতিবাচক উপায়
ভক্তির পথ আমাদের সকলের কাছে গ্রহণযোগ্যতা এবং সহনশীলতা গড়ে তোলার সুযোগ দেয়।

৪। জ্ঞান যোগব্যায়াম
আমরা যদি ভক্তিটিকে মনের যোগফল হিসাবে বিবেচনা করি তবে জ্ঞান যোগব্যায়াম টি হলো বুদ্ধির যোগফল। এই পথে চলার জন্য যোগের পাঠ্য এবং পাঠ্যগুলির অধ্যয়নের মাধ্যমে বুদ্ধির বিকাশ প্রয়োজন।
এই জ্ঞান যোগাকে সবচেয়ে কঠিন হিসাবে বিবেচনা করা হয়। এটি গুরুতর অধ্যয়নের মাধ্যমে অর্জন করতে হয়। এটিই হ’ল যোগব্যায়াম। তবে যোগাসনের বিভিন্ন পদ্ধতি রয়েছে। সেগুলো নিয়ে পরিবর্তিতে আমরা আলোচনা করবো।

উপসংহারঃ যোগব্যায়াম কি? যোগ ব্যায়ামের উপকারিতা ও করার নিয়ম পোষ্টটি আশা করি আপনাদের পছন্দ হয়েছে। এই পোষ্ট থেকে ইয়োগা বা যোগ ব্যায়াম কি, এর উপাকারিতা এবং যোগব্যায়াম করার নিয়ম সর্ম্পকে ভালো ধারনা পেয়েছেন।

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Discover more from

Subscribe now to keep reading and get access to the full archive.

Continue reading

Lenard’s terror strikes is a fictional story with fictional characters. Money, markets & more with dominic frisby. Yoga teacher training in bali.