সামাজিক অধিকারের সংজ্ঞা লেখ।

সামাজিক অধিকার : মানুষ সমাজে বাস করে তার জন্য সামাজিক অধিকার সবচেয়ে বেশি উল্লেখযোগ্য। আমাদের দেশ গণতন্ত্র প্রধান। এই গণতন্ত্রে সমাজ জীবনটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সমাজের বিভিন্ন নিয়ম-নীতি। পরস্পর পরস্পরে একাকিত্ব বোধ, সহযোগিতা, আত্মসমপর্ণ, স্নেহ, ভালোবাসা, নম্রতা, সহিষ্ণুতা প্রভৃতি গুণগুলি আছে। এই গুণগুলির সঙ্গে মিশে মানুষ সামাজিক অধিকার অর্জন করে। সমাজের একটি গুরুত্বপূর্ণ অধিকার হলো শিক্ষার অধিকার। এছাড়াও আছে কর্মের অধিকার সামাজিক অধিকারের মধ্যে যেসকল অধিকারগুলি পর্যবেক্ষণ করা যায় তা নিম্নে আলোচনা করা হলো

 সাম্যের অধিকার সমাজে মানুষকে স্থায়ীভাবে টিকে থাকতে হলে সাম্যের অধিকার প্রয়োজন। সাম্য ছাড়া সমাজে থাকা সম্ভব নয়। এই অধিকারটি সামাজিক অধিকারের দ্বারা স্বীকৃত।

স্বাস্থ্য সংরক্ষণ : –

জীবনকে সুন্দর ও রোগ মুক্ত করা দরকার তার জন্য ব্যক্তির স্বাস্থ্য সংরক্ষণের অধিকার স্বীকৃত যা সামাজিক অধিকারের অন্তর্ভুক্ত।

 সুস্থ পরিবেশ : –

সামাজিক অধিকারের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ দিক হলো পরিবেশকে সুস্থ ও স্বাভাবিক ভাবে গড়ে তোলা।

প্রশ্ন : অর্থনৈতিক সাম্য ।

উত্তর : – অর্থনৈতিক সাম্যের প্রকৃতি : –

অর্থনৈতিক সাম্য ব্যতীত অন্যান্য ক্ষেত্রে সাম্যের স্বীকৃতি মূল্যহীন। আয় ও ধনবৈষম্যের অস্তিত্বহীনতা অর্থনৈতিক সাম্যের মূল বক্তব্য। সাম্য বলতে যদি ব্যক্তিত্ব বিকাশের জন্য উপযুক্ত সুযোগ-সুবিধার সমতাকে বোঝায়, তবে অর্থনৈতিক সাম্যের গুরুত্ব সবথেকে বেশি। অর্থনৈতিক সাম্য না থাকলে এবং অন্যান্য নাগরিক বৈষম্য থাকলেও সমাজের সম্পদশালী একটি শ্রেণির সৃষ্টি হয়। এই শ্রেণিই বিশেষ সুযোগসুবিধা ও স্বাধীনতা ভোগ করে।

অর্থনৈতিক সাম্য ছাড়া স্বাধীনতা মূল্যহীন : –

 অধ্যাপক হ্যারল্ড লাস্কি তাঁর ‘A Grammar of Politics’ গ্রন্থে বলেছেন যে অর্থনৈতিক সাম্য না থাকলে রাজনৈতিক সাম্য মূল্যহীন। মার্কসবাদীরাও এই অভিমত প্রকাশ করেন যে ধনবৈষম্যমূলক সমাজে অর্থনৈতিক সাম্য না থাকার ফলে রাজনৈতিক ও সামাজিক স্বাধীনতা নিতান্তই মূল্যহীন হয়ে পড়ে। মার্কসীয় তত্ত্বে স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠার পূর্বশর্ত হিসেবে অর্থনৈতিক সাম্যের কথা বলা হয় ।

প্রশ্ন: স্বাধীনতা ও সাম্যের পারস্পরিক সম্পর্ক কী

উত্তর  : – স্বাধীনতা ও সাম্যের সম্পর্ক : –

 আমেরিকার স্বাধীনতা সংগ্রাম ও ফরাসি বিপ্লবের দ্বারা সাম্য, মৈত্রী ও স্বাধীনতার আদর্শ ঘোষিত হয়। ব্যক্তিস্বাতন্ত্র্যবাদী চিন্তাবিদ ল্যাস্কি, অ্যাকটন, টকভিল প্রমুখ সাম্য ও স্বাধীনতাকে পরস্পরবিরোধী বলে মনে করেন। অ্যাকটনের মতে, The passion for equality makes vain the hope for freedom: সাম্য ও স্বাধীনতার আদর্শ পরস্পরবিরোধী নয়, ল্যাস্কি, রুশো, বার্কার এবং মার্কসীয় চিন্তাবিদগণের মতে, সাম্য ও স্বাধীনতা পরস্পরের পরিপূরক।

রুশো বলেন, liberty cannot exist without equality. স্বাধীনতার আদর্শকে বাস্তবায়িত করার উদ্দেশ্যে বৈষম্যের বিলুপ্তি প্রয়োজন। সামাজিক ও অর্থনৈতিক বৈষম্য থাকার ফলে প্রকৃত স্বাধীনতা উপলব্ধি করা যায় না। সুতরাং সাম্য ও স্বাধীনতা পরস্পরের পরিপূরক। মার্কসীয় দৃষ্টিকোণে অর্থনৈতিক সাম্যকে স্বাধীনতার পূর্বশর্তরূপে অভিহিত করা হয়।

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Discover more from

Subscribe now to keep reading and get access to the full archive.

Continue reading

Join our photography institute and capture moments that last a lifetime. Layanan terjemahan ⌨ inggris italia indonesia spanyol. Bienvenue au studio france tattoo box à avignon, où l’art rencontre la peau.