ষষ্ঠদশ শতাব্দীতে ভূমধ্যসাগর থেকে আটলান্টিক মহাসাগর পর্যন্ত অর্থনৈতিক ভারসাম্যের পরিবর্তনের কারণ সম্পর্কে ব্যাখ্যা করো | ভূমধ্যসাগর থেকে আটলান্টিক মহাসাগরের অর্থনৈতিক বিবর্তন সংক্ষেপে আলোচনা করো|ষোড়শ শতক থেকে ইউরোপীয় অর্থনীতির ভরকেন্দ্র কীভাবে ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চল থেকে আটলান্টিক সাগরীয় অঞ্চলে সরে যেতে থাকে | Explain the reason for the shift in the economic balance from the Mediterranean to the Atlantic in the 16th Century

উত্তর :-  ষোড়শ শতক ইউরোপের অর্থনীতি বিশ্ব ইতিহাসে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ। এই শতাব্দীতে ইউরোপের অর্থনৈতিক সম্প্রসারণের বেগ বৃদ্ধি পেয়েছিল। দ্বাদশ শতাব্দী থেকে ইউরোপীয় অর্থনীতি ক্রমশ ক্ষতিগ্রস্তের দিকে এগিয়ে গিয়েছিল। কিন্তু চতুৰ্দশ শতকের পর থেকে ইউরোপের অর্থনৈতিক অবস্থার পরিবর্তন ঘটে। পঞ্চদশ শতাব্দীতে ইউরোপে যে দুর্ভিক্ষ দেখা দিয়েছিল তা তীব্র খাদ্য সংকট তৈরি করেছিল। গবেষক পোস্টান ও হ্যামিলটন দেখেছেন যে কিভাবে ইউরোপের অর্থ সংকটের মূলে ছিল। সোনা ও রূপার কম যোগান। কিন্তু কালক্রমে ইউরোপ অর্থনৈতিক পরিবর্তনশীল অঞ্চলে পরিণত হয়।

পঞ্চদশ শতকের দ্বিতীয়ার্ধে অর্থাৎ ১৪৫৩ খ্রিস্টাব্দে তুর্কিদের হাতে কনস্ট্যান্টিনোপল অধিকৃত হলে বাজার হিসাবে ভেনিসের গুরুত্ব কমে যায়। মূলত কৃষ্ণসাগর ও ভূমধ্যসাগর তুর্কিদের দ্বারা অধিকৃত হলে ভেনিসের বাজার মার খেয়ে যায়। এই অঞ্চলে তুর্কিদের আধিপত্যের কারণে ইউরোপীয়রা বিকল্প বাণিজ্যের পথের সন্ধান করতে থাকে। কেননা এই অঞ্চলে বাণিজ্যের অর্থ ছিল তুর্কিদের আক্রমণ, সমুদ্রযাত্রা ও ভৌগোলিক অভিযানের সূত্র ধরে ইউরোপীয়রা আটলান্টিক ধরে নতুন বাণিজ্যপথ খুঁজতে থাকে এবং এটাই হয় তাদের পরবর্তী কালের বাণিজ্যের মাধ্যম। এভাবে ভূমধ্যসাগর থেকে আটলান্টিক মহাসাগরে বাণিজ্যে রূপান্তরিত ঘটেছিল। ১৪৯৮ খ্রিস্টাব্দে আটলান্টিক মহাসাগরীয় বাণিজ্য পথ ধরে ভাস্কো দা গামা ভারতের কালিকট বন্দরে উপস্থিত হন। এর ফলে প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের বাণিজ্যে ভেনিসের ভূমিকা খর্ব হয়ে যায় এবং পর্তুগিজরা ইউরোপীয় বাণিজ্য ক্ষেত্রে এক নতুন বাণিজ্যিক ভূমিকা পালন করে।

ঐতিহাসিক ফার্দিনান্দ ব্রোদেল এবং ওয়ালার স্টেইন ষোড়শ শতকের ইউরোপের অর্থনৈতিক বিকাশ সম্পর্কে আলোচনা করেছেন। এ ব্যাপারে মূল আলোচ্য বিষয় হল বিশ্ব বাণিজ্য । ঐতিহাসিক ইমানুয়েল, ওয়ালার স্টেইন তাদের গ্রন্থ The Modern World System: “Capitalist agriclture and the origin of the European  world economy in the sixteenth century” এ বিষয়ে বিশদ আলোচনা করেছেন। সেই সময় মহাদেশ থেকে মহাদেশের অবান্তরের তথা দূরপাল্লার বাণিজ্য পরিচিত ছিল। প্রাচীনকালে ভারত বাণিজ্য, একইসঙ্গে ভারতবর্ষের সঙ্গে চীন ও দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার বাণিজ্য ছিল বিশ্ব বাণিজ্য। কিন্তু ষোড়শ শতকে সমগ্র ইউরোপ হয়ে ওঠে বিশ্ববাণিজ্যের অন্যতম কেন্দ্র। ঐতিহাসিক হেনরি পিরেন, পল সুইগী মনে করেন সৌখিন দ্রব্যের চাহিদা বৃদ্ধির কারণে ইউরোপ বাণিজ্যের উৎসে পরিণত হয়েছিল। Food and Fuel এর মতো অতি প্রয়োজনীয় পণ্যের ক্রমবর্ধমান চাহিদা পাল্টে দিয়েছিল ব্যবসায়িক ধারণাকে। এর ফলে ইউরোপে নতুন বাণিজ্যের প্রসার ঘটে। যা ঐক্যগত বাণিজ্যের সৃষ্টি করেছিল।

ষোড়শ শতক থেকে ইউরোপে আন্তঃমহাদেশীয় বাণিজের সূচনা করেছিল। তুর্কিদের দ্বারা ভূমধ্যসাগর অধিকৃত হওয়ার পর থেকে আটলান্টিক মহাসাগর, ভারত মহাসাগর ও প্রশান্ত মহাসাগরে ইউরোপ, এশিয়া, আমেরিকা বাণিজ্যিক সম্পর্ক চলতে থাকে। এই বাণিজ্যে বহু কাঁচামাল প্রাচ্য থেকে সংগ্রহ করা হত। ইউরোপের অভ্যন্তরে পরিস্থিতি তথা সামন্ততান্ত্রিক উৎপাদন ব্যবস্থা এই সময়ে ইউরোপের অর্থনৈতিক পরিবর্তন এনে দিয়েছে। পশ্চিম ইউরোপের অর্থনৈতিক সংকটের কারণে বিশ্ব বাণিজ্যের উত্থান ঘটেছিল। এই বাণিজ্যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছিল স্পেন ও পর্তুগাল। কেননা প্রাথমিক পর্বে তারা ভৌগোলিক আবিষ্কারের পথিকৃৎ ছিলেন।

ঐতিহাসিক ওয়ালারস্টেইন ইউরোপকে এই বিশ্ব বাণিজ্যের core এলাকা বলে চিহ্নিত করেছিলেন (ইংল্যান্ড, হল্যান্ড ও ফ্রান্স)। এই অঞ্চলগুলিতে যেহেতু কেন্দ্রীয় শাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছিল তাই সেখানকার বাণিজ্যও সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত হয়েছিল। কারিগরি শিল্পের বিকাশে এই অঞ্চলে জনসংখ্যা বৃদ্ধিজনিত কোনো সমস্যা দেখা যায়নি। তবে এই অঞ্চলে ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত হয়েছিল দাস ব্যবস্থা যা আটলান্টিক সিস্টেমের বিশেষ অঙ্গে পরিণত হয়। জনসংখ্যা বৃদ্ধির কারণে শস্য আমদানি রপ্তানি গোটা ইউরোপে ব্যাপকভাবে শুরু হয়েছিল। ভূস্বামী ও কৃষকদের আয় বৃদ্ধির ফলে ব্যবসা বাণিজ্য ও শিল্প উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছিল। চর্মজাত মাংস, চিজ, ফলমূল, সুরা এবং বহু বিচিত্র সব্জি ইউরোপের বাজারে পৌঁছে যায়।

ষোড়শ শতাব্দীতে বিশ্ববাণিজ্যকে সম্পূর্ণ করেছিল বিভিন্ন আর্থিক সংস্থা। ব্যাঙ্কিং double entry book keeping, instrument of credit bill, insurance, exchange সহ একাধিক আর্থিক সংস্থা এই সময় গড়ে উঠেছিল। এগুলি সুদের বিনিময়ে ঋণ প্রদান করত । ফলে বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে আরও সুবিধা হয়েছিল। ইউরোপে এই বাণিজ্যের সূত্র ধরে ভূমধ্যসাগর অঞ্চল পুরানো গুরুত্ব হারিয়ে ফেলে এবং এই  জায়গায় আটলান্টিক বাণিজ্যের শ্রীবৃদ্ধি ঘটেছিল। যা ষোড়শ শতকের পরবর্তী সময়ের বিশ্ব অর্থনীতিতে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল।

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Discover more from

Subscribe now to keep reading and get access to the full archive.

Continue reading

Pharma field or experience as a graphic designer. Graphics dm developments north west. A case study of zaki flour mills).